যে সূরা পাঠ করলে কখনই কখনও অভাবগ্রস্ত থাকবে না

যে সূরা পাঠ করলে কখনই কখনও অভাবগ্রস্ত থাকবে না



সূরা ওয়াকিয়ার ফজিলত সম্পর্কে নবীয়েপাক সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন- যে ব্যক্তি সূরায়ে ওয়াকিয়াহ পাঠ করবে,  সে   কখনো  ক্ষুধায়   কষ্ট ভোগ  করবে না। 


আর    প্রত্যেক   জুমা’য়ার     রাত্রে    সূরাটি   একবার   করে নিয়মিত 

========

পাঠ করলে সে  কখনো গরিব   হবে  না।  তাকে   ফকির  মিসকিনের ধিকৃত জীবনযাপন করতে হবে না।


আমল:   যে   ব্যক্তি   অত্র   সূরাটি   প্রত্যেহ   কোন   একটি  নির্দিষ্ট  সময়ে   নিয়মিত   পাঠ   করবে,  সে  হালাল  রুজি কামাই করতে সম হবে। উহাতে তার হাত শক্তিশালীও হবে। জীবনে কোন সময় তাকে কাঙ্গাল হতে  হবে না। উহা       হতে       আল্লাহপাক       আমলকারীকে       নিরাপদে  রাখবেন।      যেমন    নবীয়ে    পাক    সাল্লাল্লাহু     আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন-


من قرأ سورة الواقعة كل ليلة لم يصبه فاقة ابدا-


যে   ব্যক্তি   প্রতিরাত্রে   ‘সূরায়ে   ওয়াকেয়া’   তেলাওয়াত  করবে সে কখনও অভাবগ্রস্ত থাকবে না।


এই   হাদিসে আরো বলা    হয়েছে, উক্ত নিয়্যতে  সূরাটি পাঠ   করা   হলে   নিম্নের  দোয়াটিও    ৩   বার  করে   পাঠ করতে  হবে।  ইনশাআল্লাহ     তার  উদ্দেশ্য  আল্লাহপাক  অবশ্যই পূরণ করবেন।


اللهم اكفنى بحلالك  عن حرامك   واغننى  بفضلك  عمن سواك


অর্থ:    হে    আল্লাহ    আপনি    আমাদিগকে    হারাম    হতে  বাঁচিয়ে হালাল   দ্বারা  প্রাচুর্য   দান করুন  আর  অন্য  সব কিছু   হতে দূরে  রেখে  আপনার  দয়া দ্বারা আমাদিগকে ধনী করুন।


আমি রাসুলুল্লাহকে (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলতে শুনেছি, ‘যে ব্যক্তি প্রতি রাতে সূরা ওয়াকিয়া পাঠ করবে, সে কখনও উপবাস করবে না।’


হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেন, যে ব্যক্তি প্রতি রাতে সূরা ওয়াকিয়া তেলাওয়াত করবে তাকে কখনো দরিদ্রতা স্পর্শ করবে না। 


হজরত ইবনে মাসউদ (রা.) তার মেয়েদেরকে প্রত্যেক রাতে এ সূরা তেলাওয়াত করার আদেশ করতেন। (বাইহাকি: শুআবুল ঈমান-২৪৯৮)


এই সূরার আমল দ্বারা কেহ ধনবান হতে  চাইলে কোন এক জুমুআর দিন হতে আরম্ভ করে একাধারে সাতদিন রোযা রাখবে   এবং প্রত্যেহ ফজরের নামাযান্তে ২৫বার এই     সূরা      পাঠ        করবে।     পরবর্তী      জুমুআর      রাত্রে মাগরিবের  পর  ২৫বার  এবং   এশার পরে ২৫বার এই সূরাটি   পড়ে   পরিশেষে   ২৫বার   দরূদশরীফ   পড়বে।  তারপর   প্রত্যেহ   ফজর   ও   মাগরিবের   পরে   একবার  করে  এই  সূরা  পড়তে  থাকলে  আল্লাহর  ফজলে  প্রচুর  ধনসম্পদ  লাভ  হবে  এবং  সর্বপ্রকারের  উদ্দেশ্য সফল হবে।


সূরা ওয়াকিয়াঃ


بِسۡمِ اللّٰہِ الرَّحۡمٰنِ الرَّحِیۡمِ
اِذَا وَقَعَتِ الۡوَاقِعَۃُ ۙ﴿۱﴾
لَیۡسَ  لِوَقۡعَتِہَا  کَاذِبَۃٌ ۘ﴿۲﴾
خَافِضَۃٌ  رَّافِعَۃٌ ۙ﴿۳﴾
اِذَا  رُجَّتِ الۡاَرۡضُ  رَجًّا ۙ﴿۴﴾
وَّ  بُسَّتِ الۡجِبَالُ  بَسًّا ۙ﴿۵﴾
فَکَانَتۡ ہَبَآءً  مُّنۡۢبَثًّا ۙ﴿۶﴾
وَّ کُنۡتُمۡ  اَزۡوَاجًا  ثَلٰثَۃً ؕ﴿۷﴾
فَاَصۡحٰبُ الۡمَیۡمَنَۃِ ۬ۙ مَاۤ  اَصۡحٰبُ الۡمَیۡمَنَۃِ ؕ﴿۸﴾
وَ اَصۡحٰبُ الۡمَشۡـَٔمَۃِ ۬ۙ مَاۤ  اَصۡحٰبُ الۡمَشۡـَٔمَۃِ ؕ﴿۹﴾
وَ السّٰبِقُوۡنَ  السّٰبِقُوۡنَ ﴿ۚۙ۱۰﴾
اُولٰٓئِکَ  الۡمُقَرَّبُوۡنَ ﴿ۚ۱۱﴾
فِیۡ  جَنّٰتِ النَّعِیۡمِ ﴿۱۲﴾
ثُلَّۃٌ  مِّنَ الۡاَوَّلِیۡنَ ﴿ۙ۱۳﴾
وَ قَلِیۡلٌ  مِّنَ الۡاٰخِرِیۡنَ ﴿ؕ۱۴﴾
عَلٰی سُرُرٍ مَّوۡضُوۡنَۃٍ ﴿ۙ۱۵﴾
مُّتَّکِـِٕیۡنَ عَلَیۡہَا مُتَقٰبِلِیۡنَ ﴿۱۶﴾
یَطُوۡفُ عَلَیۡہِمۡ  وِلۡدَانٌ   مُّخَلَّدُوۡنَ ﴿ۙ۱۷﴾
بِاَکۡوَابٍ وَّ اَبَارِیۡقَ ۬ۙ وَ کَاۡسٍ مِّنۡ مَّعِیۡنٍ ﴿ۙ۱۸﴾
لَّا  یُصَدَّعُوۡنَ عَنۡہَا وَ لَا  یُنۡزِفُوۡنَ ﴿ۙ۱۹﴾
وَ فَاکِہَۃٍ   مِّمَّا یَتَخَیَّرُوۡنَ ﴿ۙ۲۰﴾
وَ  لَحۡمِ  طَیۡرٍ  مِّمَّا یَشۡتَہُوۡنَ ﴿ؕ۲۱﴾
وَ حُوۡرٌ عِیۡنٌ ﴿ۙ۲۲﴾
کَاَمۡثَالِ اللُّؤۡلُؤَ  الۡمَکۡنُوۡنِ ﴿ۚ۲۳﴾
جَزَآءًۢ  بِمَا کَانُوۡا یَعۡمَلُوۡنَ ﴿۲۴﴾
لَا یَسۡمَعُوۡنَ فِیۡہَا لَغۡوًا  وَّ لَا  تَاۡثِیۡمًا ﴿ۙ۲۵﴾
اِلَّا  قِیۡلًا  سَلٰمًا سَلٰمًا ﴿۲۶﴾
وَ اَصۡحٰبُ الۡیَمِیۡنِ ۬ۙ مَاۤ  اَصۡحٰبُ الۡیَمِیۡنِ ﴿ؕ۲۷﴾
فِیۡ  سِدۡرٍ مَّخۡضُوۡدٍ ﴿ۙ۲۸﴾
وَّ  طَلۡحٍ  مَّنۡضُوۡدٍ ﴿ۙ۲۹﴾
وَّ ظِلٍّ  مَّمۡدُوۡدٍ ﴿ۙ۳۰﴾
وَّ مَآءٍ  مَّسۡکُوۡبٍ ﴿ۙ۳۱﴾
وَّ  فَاکِہَۃٍ   کَثِیۡرَۃٍ ﴿ۙ۳۲﴾
لَّا مَقۡطُوۡعَۃٍ  وَّ لَا  مَمۡنُوۡعَۃٍ ﴿ۙ۳۳﴾
وَّ فُرُشٍ مَّرۡفُوۡعَۃٍ ﴿ؕ۳۴﴾
اِنَّاۤ  اَنۡشَاۡنٰہُنَّ  اِنۡشَآءً ﴿ۙ۳۵﴾
فَجَعَلۡنٰہُنَّ  اَبۡکَارًا ﴿ۙ۳۶﴾
عُرُبًا  اَتۡرَابًا ﴿ۙ۳۷﴾
لِّاَصۡحٰبِ الۡیَمِیۡنِ ﴿ؕ٪۳۸﴾
ثُلَّۃٌ  مِّنَ  الۡاَوَّلِیۡنَ ﴿ۙ۳۹﴾
وَ ثُلَّۃٌ  مِّنَ  الۡاٰخِرِیۡنَ ﴿ؕ۴۰﴾
وَ اَصۡحٰبُ الشِّمَالِ ۬ۙ مَاۤ  اَصۡحٰبُ  الشِّمَالِ ﴿ؕ۴۱﴾
فِیۡ  سَمُوۡمٍ  وَّ  حَمِیۡمٍ ﴿ۙ۴۲﴾
وَّ ظِلٍّ  مِّنۡ  یَّحۡمُوۡمٍ ﴿ۙ۴۳﴾
لَّا  بَارِدٍ  وَّ  لَا کَرِیۡمٍ ﴿۴۴﴾
اِنَّہُمۡ  کَانُوۡا  قَبۡلَ  ذٰلِکَ  مُتۡرَفِیۡنَ ﴿ۚۖ۴۵﴾
وَ کَانُوۡا یُصِرُّوۡنَ عَلَی الۡحِنۡثِ الۡعَظِیۡمِ ﴿ۚ۴۶﴾
وَ کَانُوۡا یَقُوۡلُوۡنَ ۬ۙ  اَئِذَا  مِتۡنَا وَ   کُنَّا  تُرَابًا  وَّ عِظَامًا ءَاِنَّا لَمَبۡعُوۡثُوۡنَ ﴿ۙ۴۷﴾
اَوَ  اٰبَآؤُنَا  الۡاَوَّلُوۡنَ ﴿۴۸﴾
قُلۡ  اِنَّ الۡاَوَّلِیۡنَ  وَ  الۡاٰخِرِیۡنَ ﴿ۙ۴۹﴾
لَمَجۡمُوۡعُوۡنَ ۬ۙ اِلٰی مِیۡقَاتِ یَوۡمٍ مَّعۡلُوۡمٍ ﴿۵۰﴾
ثُمَّ  اِنَّکُمۡ  اَیُّہَا الضَّآلُّوۡنَ الۡمُکَذِّبُوۡنَ ﴿ۙ۵۱﴾
لَاٰکِلُوۡنَ مِنۡ شَجَرٍ  مِّنۡ  زَقُّوۡمٍ ﴿ۙ۵۲﴾
فَمَالِـُٔوۡنَ  مِنۡہَا الۡبُطُوۡنَ ﴿ۚ۵۳﴾
فَشٰرِبُوۡنَ عَلَیۡہِ مِنَ الۡحَمِیۡمِ ﴿ۚ۵۴﴾
فَشٰرِبُوۡنَ شُرۡبَ الۡہِیۡمِ ﴿ؕ۵۵﴾
ہٰذَا  نُزُلُہُمۡ یَوۡمَ الدِّیۡنِ ﴿ؕ۵۶﴾
نَحۡنُ خَلَقۡنٰکُمۡ  فَلَوۡ لَا تُصَدِّقُوۡنَ ﴿۵۷﴾
اَفَرَءَیۡتُمۡ مَّا تُمۡنُوۡنَ ﴿ؕ۵۸﴾
ءَاَنۡتُمۡ  تَخۡلُقُوۡنَہٗۤ  اَمۡ  نَحۡنُ  الۡخٰلِقُوۡنَ ﴿۵۹﴾
نَحۡنُ قَدَّرۡنَا بَیۡنَکُمُ الۡمَوۡتَ وَ مَا نَحۡنُ بِمَسۡبُوۡقِیۡنَ ﴿ۙ۶۰﴾
عَلٰۤی    اَنۡ نُّبَدِّلَ   اَمۡثَالَکُمۡ وَ نُنۡشِئَکُمۡ  فِیۡ  مَا لَا  تَعۡلَمُوۡنَ ﴿۶۱﴾
وَ لَقَدۡ عَلِمۡتُمُ النَّشۡاَۃَ  الۡاُوۡلٰی فَلَوۡ لَا تَذَکَّرُوۡنَ ﴿۶۲﴾
اَفَرَءَیۡتُمۡ  مَّا  تَحۡرُثُوۡنَ ﴿ؕ۶۳﴾
ءَاَنۡتُمۡ تَزۡرَعُوۡنَہٗۤ  اَمۡ نَحۡنُ الزّٰرِعُوۡنَ ﴿۶۴﴾
لَوۡ نَشَآءُ  لَجَعَلۡنٰہُ  حُطَامًا فَظَلۡتُمۡ تَفَکَّہُوۡنَ ﴿۶۵﴾
اِنَّا  لَمُغۡرَمُوۡنَ ﴿ۙ۶۶﴾
بَلۡ  نَحۡنُ  مَحۡرُوۡمُوۡنَ ﴿۶۷﴾
اَفَرَءَیۡتُمُ  الۡمَآءَ  الَّذِیۡ تَشۡرَبُوۡنَ ﴿ؕ۶۸﴾
ءَاَنۡتُمۡ  اَنۡزَلۡتُمُوۡہُ مِنَ الۡمُزۡنِ اَمۡ نَحۡنُ الۡمُنۡزِلُوۡنَ ﴿۶۹﴾
لَوۡ نَشَآءُ  جَعَلۡنٰہُ  اُجَاجًا فَلَوۡ لَا تَشۡکُرُوۡنَ ﴿۷۰﴾
اَفَرَءَیۡتُمُ النَّارَ الَّتِیۡ تُوۡرُوۡنَ ﴿ؕ۷۱﴾
ءَاَنۡتُمۡ اَنۡشَاۡتُمۡ شَجَرَتَہَاۤ  اَمۡ نَحۡنُ الۡمُنۡشِـُٔوۡنَ ﴿۷۲﴾
نَحۡنُ جَعَلۡنٰہَا تَذۡکِرَۃً  وَّ مَتَاعًا لِّلۡمُقۡوِیۡنَ ﴿ۚ۷۳﴾
فَسَبِّحۡ  بِاسۡمِ  رَبِّکَ الۡعَظِیۡمِ ﴿٪ؓ۷۴﴾
فَلَاۤ   اُقۡسِمُ  بِمَوٰقِعِ  النُّجُوۡمِ ﴿ۙ۷۵﴾
وَ  اِنَّہٗ  لَقَسَمٌ  لَّوۡ  تَعۡلَمُوۡنَ عَظِیۡمٌ ﴿ۙ۷۶﴾
اِنَّہٗ   لَقُرۡاٰنٌ   کَرِیۡمٌ ﴿ۙ۷۷﴾
فِیۡ  کِتٰبٍ مَّکۡنُوۡنٍ ﴿ۙ۷۸﴾
لَّا  یَمَسُّہٗۤ  اِلَّا الۡمُطَہَّرُوۡنَ ﴿ؕ۷۹﴾
تَنۡزِیۡلٌ  مِّنۡ  رَّبِّ الۡعٰلَمِیۡنَ ﴿۸۰﴾
اَفَبِہٰذَا  الۡحَدِیۡثِ  اَنۡتُمۡ  مُّدۡہِنُوۡنَ ﴿ۙ۸۱﴾
وَ تَجۡعَلُوۡنَ  رِزۡقَکُمۡ  اَنَّکُمۡ تُکَذِّبُوۡنَ ﴿۸۲﴾
فَلَوۡ لَاۤ   اِذَا  بَلَغَتِ  الۡحُلۡقُوۡمَ ﴿ۙ۸۳﴾
وَ اَنۡتُمۡ  حِیۡنَئِذٍ  تَنۡظُرُوۡنَ ﴿ۙ۸۴﴾
وَ  نَحۡنُ  اَقۡرَبُ اِلَیۡہِ مِنۡکُمۡ  وَ لٰکِنۡ لَّا  تُبۡصِرُوۡنَ ﴿۸۵﴾
فَلَوۡ لَاۤ  اِنۡ  کُنۡتُمۡ  غَیۡرَ  مَدِیۡنِیۡنَ ﴿ۙ۸۶﴾
تَرۡجِعُوۡنَہَاۤ  اِنۡ  کُنۡتُمۡ صٰدِقِیۡنَ ﴿۸۷﴾
فَاَمَّاۤ  اِنۡ کَانَ مِنَ الۡمُقَرَّبِیۡنَ ﴿ۙ۸۸﴾
فَرَوۡحٌ  وَّ  رَیۡحَانٌ ۬ۙ وَّ جَنَّتُ نَعِیۡمٍ ﴿۸۹﴾
وَ اَمَّاۤ  اِنۡ  کَانَ مِنۡ  اَصۡحٰبِ الۡیَمِیۡنِ ﴿ۙ۹۰﴾
فَسَلٰمٌ  لَّکَ مِنۡ  اَصۡحٰبِ الۡیَمِیۡنِ ﴿ؕ۹۱﴾
وَ اَمَّاۤ   اِنۡ کَانَ مِنَ الۡمُکَذِّبِیۡنَ الضَّآلِّیۡنَ ﴿ۙ۹۲﴾
فَنُزُلٌ مِّنۡ حَمِیۡمٍ ﴿ۙ۹۳﴾
وَّ تَصۡلِیَۃُ  جَحِیۡمٍ ﴿۹۴﴾
اِنَّ ہٰذَا  لَہُوَ  حَقُّ الۡیَقِیۡنِ ﴿ۚ۹۵﴾
فَسَبِّحۡ  بِاسۡمِ  رَبِّکَ الۡعَظِیۡمِ ﴿٪۹۶﴾


No comments

Powered by Blogger.