স্বামী স্ত্রীর সম্পর্ক বিষয়ে কিছু হাদিস

স্বামী স্ত্রীর সম্পর্ক বিষয়ে কিছু হাদিস



স্ত্রী গ্লাসের যে স্থানে ঠোঁট রেখে পানি পান করে সেই স্থানে ঠোঁট রেখে পানি পান করা সুন্নাত। (মুসলিমঃ৫৭৯)


 স্ত্রীর সাথে চুল আঁচড়ে নেয়া সুন্নাত। আয়েশা رضي الله عنها রাসূল ﷺ এর চুল আঁচড়ে দিতেন (বুখারীঃ২৯৫, মুসলিমঃ৫৭১)


স্ত্রীর সাথে একই সাথে গোসল করা সুন্নাত। আয়েশা رضي الله عنها এর সাথে এবং কখনো মাইমুনা رضي الله عنها এর সাথে রাসূল ﷺ পবিত্রতার গোসল করতেন (মুসলিমঃ৬২০, নাসাঈঃ৩৮০)


স্ত্রীর ব্যাবহার করা মেসওয়াক দিয়ে মেসওয়াক করা সুন্নাত। রাসূল ﷺ যখন মৃত্যুশয্যায়, তখন রাসূল ﷺ আয়েশা رضي الله عنها এর কোলে শুয়ে ছিলেন

এবং রাসূল ﷺ বার বার মেসওয়াকের দিকে তাকাচ্ছিলেন, কিন্তু রাসূল ﷺ এতোটাই অসুস্থ ছিলেন যে মেসওয়াক চিবোতে পারবেন না,

তাই আয়েশা رضي الله عنها মেসওয়াক চিবিয়ে দেন এবং রাসূল ﷺ ঐ মেসওয়াক দিয়ে মেসওয়াক করেন।

হাদীসে এভাবে লালা একত্রিত হওয়ার কথা উল্লেখ রয়েছে (বুখারীঃ৫২২৬)


 স্ত্রীর প্রশংসা করা সুন্নাত। রাসূল ﷺ আয়েশা رضي الله عنها সবার সেরা, এবং খাদিজা رضي الله عنها এর ভালোবাসার প্রশংসা করতেন(বুখারীঃ৫২২৯, ৩৪১১)


 স্ত্রীর সাথে খেলায় প্রতিযোগিতা করা সুন্নাত। রাসূল ﷺ এবং আয়েশা رضي الله عنها রাত্রীতে সবাই ঘুমোলে দৌড় প্রতিযোগিতা করতেন।

(ইবনে মাজাহঃ১৯৭৯,আবু দাঊদঃ২৫৭৮)


স্ত্রীর মুখের খাবার খাওয়া সুন্নাত। আয়েশা رضي الله عنها হাড় যুক্ত গোশত খাওয়ার পর রাসূল ﷺ আয়েশা رضي الله عنها এর খাওয়া হাড় চুষে খেতেন।(মুসলিমঃ৫৭৯)


 স্ত্রীকে নিয়ে ঘুরতে যাওয়া বা সফরে যাওয়া সুন্নাত

স্ত্রীদের সফরে নিয়ে যেতে রাসূল ﷺ লটারী করতেন, যার নাম আসতো তাকে নিয়ে ঘুরতে যেতেন। (বুখারীঃ২৫৯৩)


 শাওয়াল মাসে বিবাহ করা সুন্নাত।(তিরমিযিঃ১০৯৩)


 স্ত্রীকে সুন্দর নামে ডাকা সুন্নাত। (রাসূল ﷺ আয়েশা رضي الله عنها কে হূমায়রা বলে ডাকতেন)স্ত্রী কে কখনো মারধর না করা সুন্নাত। রাসূল ﷺ কখনো কারো উপর প্রতিশোধ নিতেন না,

এবং স্ত্রীদের ও মার ধর করতেন না। (বুখারীঃ৫২০৪, বুখারীঃ ৬১২৬)


স্ত্রীর কোলে মাথা রেখে কোরআন তেলায়ত করা সুন্নাত। (বুখারীঃ২৯৭)


 স্ত্রীর কাজকর্মে সহযোগিতা করা সুন্নাত। (বুখারীঃ ৬৭৬)


 হায়েয অবস্থায় স্ত্রীর সাথে সাধারণ মেলামেশা করা সুন্নাত। (বুখারীঃ৩০০)


 স্ত্রীর মুখে খাবারের লোকমা তুলে দেয়া সুন্নাত। এবং  বলেন স্ত্রীকে খাবার খাইয়ে দিলে তা সদকা হিসেবে কবুল হয়,এবং তার প্রতিদান রয়েছে। (আবু দাঊদঃ২৮৬৪)


 স্ত্রীর রাগ অভিমান এবং মন বোঝার চেষ্টা করা সুন্নাত।রাসূল ﷺ বলেন আয়েশা رضي الله عنها তুমি আমার উপর রেগে থাকলে আমি বুঝতে পারি,

আয়েশা رضي الله عنها বলেন হে আল্লাহর রাসূলﷺ কিভাবে বোঝেন আপনি?

রাসূল ﷺ বলেন তুমি যখন আমার উপর রেগে থাকো তখন বলো

“হে ইবরাহিম عليه السلام  এর খোদা” আল্লাহﷻ কে এভাবে ডাকো,

আর যখন খোশ মেজাজে থাকো তখন বলো, “হে মুহাম্মদ ﷺ এর খোদা” আল্লাহ  ﷻকে এভাবে ডাকো।

(বুখারীঃ৫২২৮)


রাসুলুল্লাহ (ﷺ) ইরশাদ করেছেন,


ﺧَﻴْﺮُ ﺍﻷَﺻْﺤَﺎﺏِ ﻋِﻨْﺪَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺧَﻴْﺮُﻫُﻢْ ﻟِﺼَﺎﺣِﺒِﻪِ ﻭَﺧَﻴْﺮُ ﺍﻟْﺠِﻴﺮَﺍﻥِ ﻋِﻨْﺪَ ﺍﻟﻠَّﻪِ ﺧَﻴْﺮُﻫُﻢْ ﻟِﺠَﺎﺭِﻩِ

‘আল্লাহর কাছে সর্বোত্তম সঙ্গী সে, যে তার সঙ্গীর কাছে উত্তম।

আর আল্লাহর কাছে সর্বোত্তম প্রতিবেশী সে, যে তার প্রতিবেশীর কাছে উত্তম।(তিরমিজি, হাদিস নম্বর : ১৯৪৪)


سبحان الله , আল্লাহ তাআলা সকলকে রাসূল ﷺ এর সুন্নাত গুলো পালন করার তাওফীক দান করুন।

               🤲🤲 আমীন🤲🤲 

Post a Comment

Previous Post Next Post